Thokbirim | logo

৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

 প্রকাশিত হয়েছে মারমা ভাষার বই ‘মারমা তইংরাংস্বা

প্রকাশিত : মে ১০, ২০২২, ১২:০২

 প্রকাশিত হয়েছে মারমা ভাষার বই ‘মারমা তইংরাংস্বা

মারমা ভাষায় এর আগে মারমাদের পূর্ণাঙ্গ বই লেখা হয়নি বাংলাদেশে। এই প্রথম লিখলেন নুথোয়াই মারমা বারাঙ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের স্নাতকোত্তরের ছাত্র নুথোয়াই মারমা বারাঙ মারমা ভাষায় নিজস্ব জাতির ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিষয়ক বই লিখেছেন। বইটির নাম হচ্ছে ‘মারমা তইংরাংস্বা।

লেখক নুথোয়াই মারমা বারাঙ-এর জন্ম বান্দরবানের রোয়াংছড়ির দুর্গম অংজাইপাড়ায়। ছয় ভাই-বোনের মধ্যে তিনি পঞ্চম।

গত ২৯ এপ্রিল ঢাবির কার্জন হলে বইটির মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বইটি মূলত মারমাদের ইতিহাস, সমাজ ও সংস্কৃতি নিয়েই লেখা। নাম ‘মারমা তইংরাংস্বা’। বাংলায় ‘মারমা আদিবাসী’। মোট ২৫৬ পৃষ্ঠার বইটি উৎসর্গ করা হয়েছে লেখকের বাবা-মাকে। মোট ১১টি অধ্যায় রাখা হয়েছে বইটতে।

নুথোয়াই মারমা বারাঙ,

নুথোয়াই মারমা বারাঙ,

লেখক বলেন- কখনো ভাবিনি মারমা বর্ণমালায় মারমা জাতির ইতিহাস ও সংস্কৃতি নিয়ে লিখব। সামাজিক দায়বদ্ধতার জায়গা থেকেই ‘মারমা তইংরাংস্বা’ লিখেছি। এটি আমার দীর্ঘদিনের গবেষণা ও সাধনার ফসল। মাতৃভাষায় আমাদের ইতিহাস বা সংস্কৃতি নিয়ে বই না থাকায় মনে আক্ষেপ ছিল। বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত থাকার সুবাদে পার্বত্য চট্টগ্রামের তিনটি জেলার অনেকের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাতের সুযোগ হয়েছে। ফেসবুকের কল্যাণে দেশের বাইরে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেকের সাহায্য পেয়েছি। পড়াশোনার পাশাপাশি সুযোগ পেলেই মারমা ভাষার বিশারদদের প্রশ্ন করতাম, নোট করে রাখতাম। মানুষ বইটি গ্রহণ করছে দেখে ভালো লাগছে। সামনে মারমা ভাষা নিয়ে আরো বিশদ কাজ করতে চাই।

# সূত্র : কালের কণ্ঠ

।। থকবিরিম বার্তা।

 




সম্পাদক : মিঠুন রাকসাম

উপদেষ্টা : মতেন্দ্র মানখিন, থিওফিল নকরেক

যোগাযোগ:  ১৯ মণিপুরিপাড়া, সংসদ এভিনিউ ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫। 01787161281, 01575090829

thokbirim281@gmail.com

 

থকবিরিমে প্রকাশিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। Copyright 2020 © Thokbirim.com.

Design by Raytahost