Thokbirim | logo

২০শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ | ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বানরের হাত থেকে রক্ষা ।। মানুয়েল চাম্বুগং

প্রকাশিত : মে ২০, ২০২১, ১৩:০৫

বানরের হাত থেকে রক্ষা ।। মানুয়েল চাম্বুগং

রবিবার দিন। স্কুল থেকে মাত্র ফিরেছি। ছোট ভাই আমাকে দেখা মাত্রই বলল, “চল্ দাদা, আমলকি খেতে যায়।” তাকে বললাম,  যামুনে, আগে ভাত খেয়ে নিই।” ভাত খাওয়ার পর দু’জনে দু’টি পলিটিন ব্যাগ নিয়ে রওনা দিলাম। ইন্ডিয়া পাহাড়ের কাছাকছি পৌঁছে লক্ষ্য করলাম চার পাঁচ জন রাখাল বটগাছের নিচে ডাংগুলি খেলছে। ছোট ভাইকে বললাম, “জন, তুমি তো ছোট পাহাড়ে উঠতে পারবে না, তুমি এক কাজ কর ঐ রাখালদের সাথে থাকো, আমি বরং আমলকি নিয়ে আসি।” হ্যাঁ সুচক মাথা নেড়ে সে রাখালদের কাছে গেল। আর আমিও পাহাড়ে উঠতে লাগলাম। কিন্তু দুঃখের বিষয়! পাহাড়ে উঠে গাছের মধ্যে কোথাও আমলকি ফল দেখতে পেলাম না। যা ছিল সবই মাটিতে পড়ে পচে গেছে। তাই আমাকে আরো গভীর জঙ্গলে যেতে হলো।

ব্যঙ্গচিত্রে আবিমার তিন গারো নেতা, এ কীসের আলামত? ।। আবিমা মারাক

এক সময় দু’টি পলিটিনে ভর্তি করে আমলকি নিয়ে ফিরছি। এমন সময়  হঠাৎ পিছনে ফিরে তাকিয়ে দেখি একঝাক বানর আমার দিকে ছুটে আসছে। আমি ভয়ে দ্রুত হাঁটছি আর পিছনে বারবার তাকাচ্ছি বানরগুলো আমাকে তাড়া করছে কি-না। আপনারা হয়তো হেসে হেসে মনে মনে বলছেন আজব কোথাকার বানরের জন্য কেউ কি ভয় করে? হ্যাঁ সত্যিই আমি সেদিন বানরের জন্য অনেক ভয় ফেয়েছিলাম। কারণ আমি আগে বড়দের কাছে শুনেছিলাম যে বানররা যদি কোন মানুষকে জঙ্গলে একা পায় তাহলে তারা না-কি তাকে টেনে হেঁচড়ে একবার গাছের উপরে উঠায় আর একবার গাছের নিচে নামায়। এভাবে খেলতে খেলতে যখন দেহের কোনো জায়গায় ক্ষত পাই সেটা খুচাতে খুচাতে তারা না-কি রক্তাক্ত করে ফেলে এবং মরমরা অবস্থা হলে মাটিতে ফেলে দেয়।

লক্ষ্য করলাম সত্যি সত্যিই বানরগুলো আমার দিকে ছুটে আসছে। আমলকি ফেলে দিলাম দৌঁড়। দৌঁড়াতে গিয়ে কতবার যে গাছের সাথে ধাক্কা খেলাম, হোঁচ্ছুট খেয়ে কতবার যে মাটিতে পড়ে গেলাম তার হিসেব নেই। দৌঁড় দিতে দিতে একসময় দুইজন কাঠুরীদের সামনে পড়ে গেলাম। তাদের কাছে সমস্ত ঘটনাটা খুলে বললাম। ততক্ষণে বানরগুলো আমাদের তিনজনকে দেখতে পেয়ে সামনে আসতে সাহস পেল না। পরে ঐ দুজন কাঠুরীরাই আমাকে আমার ভাইয়ের কাছে পৌঁচ্ছে দেন। আজকাল মাঝে মাঝে এই ঘটনাটি মনে পড়লে হা হা খুবই হাসি পায়।



গারো ভাষায় জেগে ওঠার গান -হাই আনচিং খ্রেংনা

প্রমোদ মানকিন স্মরণে কবি মতেন্দ্র মানখিনের কবিতা

করোনায় পাহাড়ি আদিবাসীদের সংকটময় জীবন যাপন

করোনায় কেমন যাচ্ছে আদিবাসীদের জীবন 

করোনাকালীন তিনটি কবিতা ।। মতেন্দ্র মানখিন

একজন ভালো মনের মানুষ ব্রাদার গিয়োম ।।  কিউবার্ট রেমা

https://www.youtube.com/watch?v=eUFX7tTvm0U&t=24s

 

ttps://www.youtube.com/watch?v=WtVe7pOQaQ8&t=182s




সম্পাদক : মিঠুন রাকসাম

উপদেষ্টা : মতেন্দ্র মানখিন, থিওফিল নকরেক

যোগাযোগ:  ১৯ মণিপুরিপাড়া, সংসদ এভিনিউ ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫। 01787161281, 01575090829

thokbirim281@gmail.com

 

থকবিরিমে প্রকাশিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। Copyright 2020 © Thokbirim.com.

Design by Raytahost