Thokbirim | logo

১০ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বাংলাদেশে প্রথম চুনিয়ায় ‘গিত্তাল মি আচ্ছিয়া’ প্রদর্শীত হচ্ছে আজ

প্রকাশিত : জানুয়ারি ২১, ২০২১, ০৬:২৫

বাংলাদেশে প্রথম চুনিয়ায় ‘গিত্তাল মি আচ্ছিয়া’ প্রদর্শীত হচ্ছে আজ

মধুপুর গড়াঞ্চলের আদি সাংসারেক ধর্মাবলম্বীদের নিয়ে তৈরি ‘গিত্তাল মি আচ্ছিয়া’ডকুমেন্টারি ফিল্ম বাংলাদেশে প্রথম প্রিমিয়ার শো হচ্ছে আজ বৃহস্পতিবার(২১জানুয়ারি ২০২১) মধুপুর থানার চুনিয়া গ্রামে। ডকুমেন্টারি ফিল্মটি তৈরি করেছেন কবি আসমা বীথি। ‘গিত্তাল মি আচ্ছিয়া’প্রথম প্রদর্শনী হয়েছিলো ২০২০ সালের ৮ সেপ্টেম্বর লন্ডনের লন্ডনের ‘THE TOMMY FLOWERS’ অডিটোরিয়ামে।

চুনিয়ায় প্রদর্শীর বিষয়ে পরিচালক কবি আসমা বীথি বলেন, `এ-অত্যন্ত আনন্দের যে, ‘গিত্তাল মি আচ্ছিয়া’ বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো প্রদর্শিত হতে যাচ্ছে। যে স্থান, মানুষ ও পরিবেশকে কেন্দ্র করে চলচ্চিত্রটি তৈরি হয়েছে, সে-স্থানে মানুষদের ছবিটি দেখাতে পারা নিঃসন্দেহে চমৎকার ঘটনা। ২১ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৬ টায় মধুপুরের চুনিয়া গ্রামে আচ্চু জনিক নকরেকের বাড়ির উঠানে চলচ্চিত্রটি প্রদর্শিত হতে যাচ্ছে।’

পরিচালক আসমা বীথি

পরিচালক আসমা বীথি

‘গিত্তাল মি আচ্ছিয়া’ ডকুমেন্টারি ফিল্ম সম্পর্কে পরিচালকের ভাষ্য হচ্ছে- ‘এই চলচ্চিত্রের প্রধান চরিত্রের নাম জনিক নকরেক, বয়স প্রায় ১১৫। মান্দি জনগোষ্ঠীর জীবন্ত কিংবদন্তি বলা হয় তাঁকে। জন্ম তৎকালীন অবিভক্ত ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে হলেও ছোটবেলা থেকেই বসবাস করেন টাঙ্গাইল জেলার অন্তর্গত মধুপুরের চুনিয়া গ্রামে। জনিক নকরেককে জীবন্ত কিংবদন্তি বলার কারণ আদিধর্ম চর্চাকারীদের মধ্যে যে ক’জন বেঁচে আছেন তিনি তাঁদের একজন। সাংস্কৃতিক অতীত নিয়ে যাদের আগ্রহ আছে তারা তাঁর কাছে আসেন। এই বয়স অব্দি তিনি ধর্মীয় পূজা, নানা আচার এবং সংস্কৃতিকে আঁকড়ে ধরে আছেন সহজাত নিজস্বতায়, নানা প্রতিবন্ধকতাকে অগ্রাহ্য করে। মান্দিদের ধর্মীয় কৃষ্টির সাথে প্রকৃতির যোগাযোগ গভীর। এই জন্যই জনিক নকরেক সহজ কথায় বলে উঠতে পারেন, ‘ধানের জোরে মানুষ, মানুষের জোরেই ধান।’

তিনি আরো বলেন,- ‘এই চলচ্চিত্র একজন জনিক নকরেকের গোটা জীবনকে উপস্থাপিত করা নয়; কিন্তু তাঁর সমগ্র জীবন-অভিজ্ঞতা তথা মান্দি জনগোষ্ঠীর সমৃদ্ধ অতীতকে প্রতিভাত করার চেষ্টা করা হয়েছে। টুকরো-টুকরো কথা থেকে আমরা পাব গভীর জীবনবোধের সন্ধান। ক্ষয়িষ্ণু বর্তমানের সাথে তাঁর উজ্জ্বল দাঁড়িয়ে থাকা আমাদের নতুন জন্মের দিকেই ইঙ্গিত দেয়  যেন।’

‘গিত্তাল মি আচ্ছিয়া’ ডকুমেন্টারি ফিল্ম-এর চিত্রগ্রহণ, গবেষণা, পাণ্ডুলিপি ও পরিচালনা করেছেন আসমা বীথি। সম্পাদনা করেছেন পঙ্কজ চৌধুরী রনি। কারিগরি সহযোগিতায়  কেএস ডিজিটাল। আর পরিবেশনায়  চিত্রভাষা।এই ডকুমেন্টারি ফিল্ম-এর ব্যাপ্তীকাল  ৩৬ মিনিট। ‘গিত্তাল মি আচ্ছিয়া’ ডকুমেন্টারি ফিল্মের নির্মাণকাল: ২০১৪-২০২০।




সম্পাদক : মিঠুন রাকসাম

উপদেষ্টা : মতেন্দ্র মানখিন, থিওফিল নকরেক

যোগাযোগ:  ১৯ মণিপুরিপাড়া, সংসদ এভিনিউ ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫। 01787161281, 01575090829

thokbirim281@gmail.com

 

থকবিরিমে প্রকাশিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। Copyright 2020 © Thokbirim.com.

Design by Raytahost