Thokbirim | logo

২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

২০২০, আলোচিত ঘটনা ।। সোমেশ্বরীর রাক্ষসী থাবায় বিধ্বস্ত কামারখালি কিংবা বড়ইকান্দি

প্রকাশিত : জানুয়ারি ০৬, ২০২১, ১৪:৫৭

২০২০, আলোচিত ঘটনা ।। সোমেশ্বরীর রাক্ষসী থাবায় বিধ্বস্ত কামারখালি কিংবা বড়ইকান্দি

২০২০ সাল ছিলো সত্যিই একটি বিষময় বছর। একদিকে যেমন করোনার আক্রমন অন্যদিকে বন্যায় বিধ্বস্ত হয়ে পড়ে হাওড়-বাওড় এলাকাগুলো। বিশেস করে  সোমেশ্বরী নদীর তীরবর্তী গারো গ্রামগুলোর দিন কেটেছে আতঙ্কে। সারা বছর যে সোমেশ্বরী নদী শীতল-স্নিগ্ধ-অপরূপ সেজে থাকে সেই নদীই বর্ষাকাল এলে পাল্টে ফেলে তার রূপ। হয়ে ওঠে রাক্ষসী। ভাসিয়ে নিয়ে যায় সব কিছু। অবশ্য এর দায়ও কিন্তু শুধু নদীর একার না। কিছু অসাধু ব্যবসায়ী সারা বছর বালু তুলে নদীর এই হাল করেছে।

বর্ষাকাল এলে সোমেশ্বরী নদীর তীরবর্তী গ্রামগুলোর মানুষজনের নির্ঘুম কাটে। তারা থাকে আতঙ্কে । কখন কার ঘর কার ভিটা ধ্বসে যায়, তলিয়ে যায় নদী গর্ভে।

২০২০ সালে সোমেশ্বরী রূপ ধারণ করেছিলো ভঙ্কর এক রাক্ষসীর। কামারখালি গ্রামের শতবর্ষী বৃক্ষসহ ভাসিয়ে নিয়েছে ঘরবাড়ি, দোকান পাট। রেহায় পায়নি মন্দির মসজিদও। সোমেশ্বরী নদী পাড়ের গ্রামগুলো বিশেষ করে  কামারখালী, বিজয়পুর,  রানীখং, বহেড়াতলী, বড়ইকান্দি, কুল্লাগড়া, ডাকুমাড়া, শিবগঞ্জ, গাওকান্দিয়া গ্রামগুলোর অবস্থা খুবই শোচনীয় হয়ে পড়ে।

সরকারের সহায়তার জন্য অপেক্ষা না করে এলাকার যুবক-যুবতীসহ সবাই এক হয়ে নদী ভাঙন প্রতিরোধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। নিজেদের বাগানের বাঁশ দিয়ে বাড়ির বস্তা দিয়ে নদী ভাঙন ঠেকাতে তৈরি করেন বাঁধ। এলাকাবাসীর এই কার্যক্রম সারা দেশে বেশ আলোড়ন তুলে। নদী ভাঙন গ্রামবাসীর আহাজারি দেখে বিভিন্ন এলাকার মানুষ, দেশের বাইরে থেকে এবং বিভিন্ন সংগঠন এগিয়ে আসেন নদী ভাঙন প্রতিরোধ কার্যক্রমে সহযোগিতা করতে। যে যেমন পারেন সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন।

সোমেশ্বরীর ভাঙন নিয়ে স্থানীয় থেকে শুরু করে জাতীয় পর্যায়ে খবর, প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। তেমনি কবি লেখকদের মনেও ভীষন দাগ কাটে। তাঁরাও লিখেন কবিতা কিংবা কলাম।

২০২০ সালে করোনা ভাইরাসের মতোই সোমেশ্বরী নদীর রূপও হয়ে ওঠে ভঙ্কর। গ্রাস করতে থাকে মানুষজনের ঘরবাড়ি, বসতভিটা, শতবর্ষী বৃক্ষ, বাজার, মসজিদ মন্দির! নদী তীরবর্তী মানুষজনদের নির্ঘুম রাত কাটে।

।। দুর্গাপুর প্রতিনিধি, থকবিরিম



 




সম্পাদক : মিঠুন রাকসাম

উপদেষ্টা : মতেন্দ্র মানখিন, থিওফিল নকরেক

যোগাযোগ:  ১৯ মণিপুরিপাড়া, সংসদ এভিনিউ ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫। 01787161281, 01575090829

thokbirim281@gmail.com

 

থকবিরিমে প্রকাশিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। Copyright 2020 © Thokbirim.com.

Design by Raytahost