Thokbirim | logo

৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

গারো নাচ ।। দওমি সুআলা রওয়া বা মোরগের লেজ পরিবেশন করা ।। তর্পন ঘাগ্রা

প্রকাশিত : জানুয়ারি ০৬, ২০২১, ১৩:৪৩

গারো নাচ ।। দওমি সুআলা রওয়া বা মোরগের লেজ পরিবেশন করা ।। তর্পন ঘাগ্রা

সাংসারেক গারোদের বিশ্বাস অনেক অনেক আগে মাটিও পানির নিচে দ্রোযানবলা কারার পর বালু দিয়ে মানুষের রূপ দেহ তৈরি করে আর কাঁশফুলকে মাথায় কপালের উপরে দিয়ে সুন্দর করে সাজানো হয়। এ নিয়মকে এখনো সাংসারেক গারোরা ওয়ানগালার সময় নাচের মাধ্যমে দামার তালে তালে দেখায়। এই নাচে সমসংখ্যক ছেলে মেয়েরা অংশগ্রহণ করে। ছেলেদের পাগড়িতে দওমি বা মোরগের পালক লাগানো থাকবে না, কিন্তু মেয়েদের পাগড়িতে বা কত্তপিং এ মোরগের পালক থাকবে। প্রত্যেক মেয়েদের বাম হাতে মোরগের পালক থাকবে। প্রথমে ছেলে-মেয়ে দুই লাইন হয়ে, দামার তালে তালে নেচে নেচে ডান হাত কপালে ঠেকিয়ে সালাম নাচবে। আর উঠানের চারদিকে এক বা দুইবার ঘুরে সবাইকে সালাম জানাবে। পরে নেচে নেচে উঠোনের মাঝখানে ছেলে-মেয়ে পাশাপাশি আলাদা দুই লাইন করে কিছু সময় নিজ নিজ জায়গায় দাঁড়িয়ে দামার তালে তালে নাচবে। পরে দামার শব্দ পরিবর্তনের সাথে সাথে মেয়েরা নেচে নেচে নিজের জায়গা ছেড়ে ছেলেদের মুখোমুখি হয়ে নাচতে থাকবে। সাথে সাথে বাম হাতে দওমি বা মোরগের পালক ডান হাতে নিবে। দামার শব্দ পরিবর্তন হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মেয়েরা এক সাথে ছেলেদের কত্তথিপং বা পাগড়িতে মোরগের লেজের লম্বা পালক ঠিক কপালের উপর লাগিয়ে দিবে। এটাই সাংসারেক গারোদের দওমি সুআলা নাচ। দওমি সাংসারেক গারো সমাজে অনেক  গুরুত্বপূর্ণ জিনিস। সম্মানী লোকদের দওমি কত্তথিপ দিয়ে সম্মান দেয়, গারো ভাষায় রাসং মিককিম অননা। আবার অনেকে বলে রাসং রাশি অননা, কিন্তু সাংসারেক গারোরা রাসং মিককিম ব্যবহার করেছে। বলা হয় প্রথমে কাঁশফুল ব্যবহার করে পরে সেই জায়গায় মোরগের পালক বা দওমি আসে।




সম্পাদক : মিঠুন রাকসাম

উপদেষ্টা : মতেন্দ্র মানখিন, থিওফিল নকরেক

যোগাযোগ:  ১৯ মণিপুরিপাড়া, সংসদ এভিনিউ ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫। 01787161281, 01575090829

thokbirim281@gmail.com

 

থকবিরিমে প্রকাশিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। Copyright 2020 © Thokbirim.com.

Design by Raytahost