Thokbirim | logo

১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সংগঠনের ৩১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বিএমএসসি

প্রকাশিত : অক্টোবর ২৪, ২০২০, ১০:২৯

সংগঠনের ৩১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বিএমএসসি

আজ ( ২৪ অক্টোবর, শনিবার,২০২০) বাংলাদেশ মারমা স্টুডেন্ট কাউন্সিল ( বিএমএসসি) ৩১ বছরে পদার্পণ করেছে। আর এ ৩১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে কর্মী সহযোদ্ধাদের ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে ও দেশের পরিস্থিতি নিয়ে এক বিবৃতি দিয়েছেন বিএমএসসি’র কেন্দ্রীয় কমিটি।
বিবৃতিতে বলা হয়, করোনা ভাইরাসের মহামারিতে পুরো পৃথিবী একপ্রকার থমকে যাওয়ার মুহূর্তে বিএমএসসি’র প্রতিষ্ঠা দিবস ২৪শে অক্টোবর এসেছে। এজন্য বিভিন্ন স্বাস্থ্যকর্মী, সরকারের বিভিন্ন বিভাগের কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারী, এনজিও কর্মী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ও স্বেচ্ছাসেবকসহ যাঁরা সামনের কাতারে করোনা ভাইরাসকে মোকাবেলা করেছেন এবং প্রাণ হারিয়েছেন, তাঁদের সবাইকে বিএমএসসি কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করছে। এবং বিএমএসসি’র সংগঠক ও কর্মীসহ যাঁরা এখনও সমুখযুদ্ধে আছেন, তাঁদেরকেও ধন্যবাদ জানাচ্ছে।
৩০ বছর আগে ১৯৮৯ সালে ২৪ শে অক্টোবর ঢাকাসহ বিভিন্ন জায়গায় অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের মধ্যে যোগাযোগের নিমিত্তে এক ঝাঁক প্রাণোচ্ছল শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে বাংলাদেশ মারমা স্টুডেন্টস্ কাউন্সিল(বিএমএসসি) নামে একটি সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। যোগাযোগের জন্য বিএমএসসি প্রতিষ্ঠা করা হলে পরবর্তীকালে মারমা ছাত্র নেতারা মারমা জাতির পিছিয়ে পড়ার মূল কারণ হিসেবে শিক্ষাকে চিহ্নিত করে শিক্ষাকে প্রাধান্য দিয়ে কতগুলো লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক কাজ করে আসছে। শিক্ষা,সাম্য,মৈত্রী ও প্রগতি এ চারটি মূলনীতিকে সামনে রেখে বিভিন্ন সময়ে উত্থান-পতন ও বন্ধুর পথে বিএমএসসি ৩১টি বছর পার করে আজকেই ৩২ বছরে পদার্পণ করতে চলেছে। এ ৩০টি বছরে বিএমএসসি তার কার্যক্রমে অনেক মেধাবী ও সংগঠক একদিকে যেমন পেয়েছে, এতে সংগঠন জ্ঞানে,কর্মে,চিন্তায় পরিপুষ্ট হয়েছে অন্যদিকে অনেক নিঃস্বার্থ সংগঠকদের মেয়াদপূর্ণ হেতু বিদায় দিয়েছে।
বিএমএসসি’র এ যাবতকালে জনকল্যাণমূলক কার্যক্রমে বিএমএসসি’র সাবেক সংগঠক ও শুভাকাঙ্ক্ষীসহ যারা পাশে থেকেছেন, তাঁদের সবাইকে বিএমএসসি বর্তমান কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই। একটা সংগঠন ৩১টি বছর পার করে এসেছে। এ ৩১টি বছরে অনেক অর্জন যেমন হয়েছে,তেমনি অনেক ব্যর্থতাও রয়েছে। প্রতিষ্ঠাকাল থেকে মারমা সমাজের খারাপ, কুসংস্কার ও পশ্চাদপথ দিকগুলো চিহ্নিত করে সেগুলো দূর করার চেষ্টা করছে। শিক্ষার প্রয়োজনীয়তাবোধ তৈরী করেছে। এজন্য লাইব্রেরী স্থাপন,হোস্টেল স্থাপনসহ প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়ে ফ্রি-কোচিং কার্যক্রমের আওতায় বিনামূল্যে পড়িয়েছে। উচ্চশিক্ষা গ্রহণের উদ্বুদ্ধকরণের জন্য সবরকমের কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। মাতৃভাষা শিক্ষা কোর্সটি চালু রেখেছে। ত্রাণ সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছে। বর্তমান এ কমিটির মেয়াদে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব হওয়ার ফলে কাজের ক্ষেত্র সংকুচিত হয়ে আসায় খুব বেশি কাজ করতে পারেনি ঠিকই। কিন্তু এ সময়কালে এ কমিটি ঝুঁকির মুখে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় কাজ করছে। অসহায় ও গরীব-দুঃস্থদের তালিকা করা থেকে শুরু করে লিফলেট বিতরণ, সচেতনতামূলক কার্যক্রমসহ ত্রাণ বিতরণ পর্যন্ত বিএমএসসি কাজ করেছে। এবং ত্রাণ সহায়তা ও জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম এখনও চলমান রয়েছে। বর্তমান সময়ে আদিবাসীদের উপর নিপীড়ন শুধুই রাজনৈতিক নয়, একই সাথে সাংস্কৃতিক আগ্রাসনও নতুন মাত্রা হিসেবে যোগ করেছে। তাই তো আমরা দেখি, বিভিন্ন জায়গার নাম পরিবর্তন করে বাংলা শব্দ বসানো হচ্ছে। আদিবাসী মেয়েকে ছলে-বলে কৌশলে বিয়ে করে ধর্মান্তরিত করা হচ্ছে প্রতিনিয়ত। একদিকে নিজস্ব মাতৃভাষা শিক্ষার আয়োজনও তেমন দৃশ্যমান হয়নি অন্যদিকে আদিবাসীদের নিয়ে বিভিন্ন পাঠ্যপুস্তকে ভিন্নভাবে ক্ষুদ্র অর্থে উত্থাপন করা হচ্ছে। এছাড়া সাম্প্রতিককালে বান্দরবান থানচিতে নাফাখুম নামক স্থানে আকাশ থেকে আল্লাহু চিহ্ন দেখা যাচ্ছে বলে বিভিন্ন ভূয়া নিউজ ছড়ানো হচ্ছে, যা আবারও পার্বত্য চট্টগ্রামে উগ্র জাতীয়তাবাদ জেগে উঠেছে এবং ধর্মান্তরকরণ, উচ্ছেদকরণ বা জায়গার নাম বদল ঘটিয়ে অন্য কোন উগ্র ধর্মের নামে পরিচিতকরণের সম্ভাবনাতেই ওই এলাকার আদিবাসীরা আশঙ্কিত ও আতঙ্কিত, এরকম গর্হিত কাজের প্রতিবাদের বিএমএসসি সোচ্চার আছে বলে জানায়। আরো বলা হয়, ঐতিহাসিক কাল থেকে বংশ পরম্পরায় লালন ও পালন করে আসা নিজস্ব সংস্কৃতির উপাদানগুলো চর্চা করা না হলে অচিরেই হারিয়ে যাবে, এ বোধ থেকেই বিএমএসসি সাংস্কৃতিক আন্দোলনের মাধ্যমে জাতির সুষ্ঠু বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। এ মহাদুঃসময়ে করোনাকে ছাপিয়ে ধর্ষণের মহামারী চলছে।
আইন ও সালিশ কেন্দ্র এর রিপোর্ট মতে, গত আট মাসে প্রায় ৯০০ টি ধর্ষণের মতো জঘন্যতম ঘটনা সংঘটিত হয়েছে, যা দেশের সকল বিবেকবাণ মানুষকে নাড়া দিয়ে চলেছে। এরকম নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে বিএমএসসি রাজপথে আন্দোলনে থেকেছে।
বিএমএসসি নারীর প্রতি সহিংসতাসহ বিভিন্ন মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনায় সম্মিলিত আন্দোলনে শক্তি জুগিয়ে চলেছে এবং প্রয়োজনে অনেক সময় আন্দোলনে সর্বাগ্রে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে আসছে। এ দীর্ঘ পথচলার সময়ে যাঁরা আর্থিক ও মানসিকভাবে সাহস জুগিয়ে চলেছেন, সবসময় পাশে থেকে বন্ধুর পথকে মসৃণ করেছেন, সেই সকল সাবেক সংগঠক ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের আবারও বিএমএসসি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছে। একই সাথে ভবিষ্যতেও আপনাদের সবার অকৃত্রিম ও অকৃপণ সহযোগিতা পাবে বলে বিএমএসসি আরও সামনে এগিয়ে যাবার আশাব্যক্ত করেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

।। আদিত্য ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি



বাসন্তী রেমার হাতে তুলে দেওয়া হলো দুই লাখ পঁচাত্তর হাজার টাকা 

কোভিড-১৯ ।। নিজে সচেতন হই, অন্যকেও সচেতন করি।। মানুয়েল চাম্বুগং

সামনে আরো ভিন্ন ভিন্ন ভাষায় গান নিয়ে আসতে পারবো আশা করছি ।। পিংকি চিরান (এফ মাইনর)

গানের শিক্ষক পল্লব স্নাল স্মরণে ।। মতেন্দ্র মানখিন

রাঙামাটিতে চলন্ত সিনজিতে আদিবাসী কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা, আটক ২

জংজংআ রওয়া  কিংবা জা-চকগা রওয়া  নাচ ।। তর্পণ ঘাগ্রা

বহেরাতুলি গ্রামকেও গ্রাস করছে সোমেশ্বরী ।। জর্জ রুরাম

ইতিহাস থেকে হারিয়ে যাচ্ছে দিঘলবাগ গ্রামের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ।। অরন্য ই. চিরান

মেথ্রা জাজং নিয়া বা যুবতীদের চাঁদ দেখা নাচ: জিংজিংগ্রিকগা রওয়া বা প্রিয়জনকে ধরে নাচ ।। তর্পণ ঘাগ্রা

ব্রাদার গিউম পেলেন নেদারল্যান্ড রাজার বিশেষ সম্মাননা ‘অ্যাওয়ার্ড অব দ্যা কিং

ইউটিউবটাই আমার ভালোবাসা ।। নীল নন্দিতা রিছিল

গারো ভাষা ও সাহিত্যের স্বরোপ-৪ ।। বর্ণমালা সংক্রান্ত কিছু তথ্য ।। বাঁধন আরেং




সম্পাদক : মিঠুন রাকসাম

উপদেষ্টা : মতেন্দ্র মানখিন, থিওফিল নকরেক

যোগাযোগ:  ১৯ মণিপুরিপাড়া, সংসদ এভিনিউ ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫। 01787161281, 01575090829

thokbirim281@gmail.com

 

থকবিরিমে প্রকাশিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। Copyright 2020 © Thokbirim.com.

Design by Raytahost
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x