Thokbirim | logo

২৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | ১২ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সোমেশ্বরী নদীর তীব্র ভাঙনে আদিবাসী পরিবারগুলো দিশেহারা 

প্রকাশিত : অক্টোবর ১০, ২০২০, ২২:২৮

সোমেশ্বরী নদীর তীব্র ভাঙনে আদিবাসী পরিবারগুলো দিশেহারা 

প্রতিবছর একটু একটু ভাঙনের ফলে অনেকটা জায়গা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। আগের বছরের তুলনায় এবছর ঘন ঘন বন্যা হওয়ায় ফলে বাড়িঘর হারিয়ে যেতে বসেছে হতদরিদ্র আদিবাসী পরিবারগুলোর।

বিজয়পুর গ্রামের ভিটেমাটি হারানো পরিবার ইঞ্জিলা হাজং কান্না বিজারিত কণ্ঠে বলেন, আমরা শাক সবজি তরুমুজ ইত্যাদি চাষ করতাম এখন বন্যায় সব জায়গা নদীগর্ভে  তলিয়ে গেছে। আর মাত্র ৪ থেকে ৫ হাত বাকি আছে আরেকটা বন্যা হলেই আমাদের বাড়িঘর সব নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে । আমরা অতি দ্রত বাঁধ চাই।

আরেক ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার উত্তরা হাজং বলেন, আমি অনেক পরিশ্রম করে উপার্জন করে একটি থাকার জন্য বাড়ি করেছিলাম আজ আমার স্বপ্নের বাড়িটি বিলীন হওয়ার পথে । সরকারের কাছে বিনীত আবেদন যেন অতি দ্রত টেকসই বাঁধ দেওয়া হয়।

টিপু হাজং বলেন, ভিটেমাটি বিলিন হওয়ায় সাথে সাথে বিষ্ণু মন্দিরটিও একদিন নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যাবে। সরকার যেন আমাদের দিকে ফিরে তাকান। আমাদের বসত ভিটা রক্ষায় অতি দ্রত স্থায়ীভাবে বেরিবাধ তৈরী করে দেন।

এদিকে  কামারখালি গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে এই গ্রামের অবস্থা খুবই শোচনীয়। এলাকার জনগণ, যুবকযুবতী এবং বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলো মাস ধরে নিজেরা বস্তা ফেলে, বাঁশ দিয়ে নিজেদের বসতভিটা রক্ষার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। কিন্তু সরকারিভাবে স্থায়ী বাঁধ না হলে এলাকাসীর নিজস্ব চেষ্টায় সোমেশ্বরীর প্রবল ভাঙন রোধ করা সম্ভব নয়।

।। অন্তর হাজং, দুর্গাপুর




সম্পাদক : মিঠুন রাকসাম

উপদেষ্টা : মতেন্দ্র মানখিন, থিওফিল নকরেক

যোগাযোগ:  ১৯ মণিপুরিপাড়া, সংসদ এভিনিউ ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫। 01787161281, 01575090829

thokbirim281@gmail.com

 

থকবিরিমে প্রকাশিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। Copyright 2020 © Thokbirim.com.

Design by Raytahost
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x