Thokbirim | logo

১৪ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ | ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সোমেশ্বরী নদীভাঙন রোধে, আমরাও একদিন উঠে দাঁড়াবো ।।  দেভাস মারাক

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২০, ০০:১৮

সোমেশ্বরী নদীভাঙন রোধে, আমরাও একদিন উঠে দাঁড়াবো ।।  দেভাস মারাক

সোমেশ্বরী নদীর ভাঙনের পর থেকে ঢাকাশহরের বিশাল বড় বড় অট্টালিকাগুলো দেখলে আমার কাছে মনে হয় এই অট্টালিকাগুলো নির্মিত হয়েছে আমাদের সোমেশ্বরী নদীর বালুদিয়ে। এগুলোতে যারা বসবাস করছে তারা কত আরামেই না বসবাস করছে। আর এদিকে আমাদের সোমেশ্বরী নদীর উপকূলে বসতভিটা হারানো অধিবাসীরা চরম দুর্ভোগে রয়েছে। কখন যে আবার পাহাড়ি ঢল নেমে এসে তাদের ভাসিয়ে নিয়ে যাবে; এই আশংকায় তারা প্রতিনিয়ত দিনযাপন করছে। ফেসবুকে গারো এক বৃদ্ধার আর্তচিৎকার সুরে কান্না দেখে আপনারা হয় তো অনেকেই আবেগাপ্লুত হয়েছেন। তবে আশার বাণী হলো তাদের এই নি:স্ব-বিলীন হওয়ার মাঝেও তারা নিজেদের রক্ষার জন্য, সোমেশ্বরী নদী ভাঙনরোধ করার জন্য একসাথে একত্রিত হয়ে কাজ করছে। এটি সত্যিই একটি মহৎ কাজ।

গত দুই একদিনের ফেসবুকের ভিডিও বার্তায় সেটিই ফুটে উঠেছে । ভিডিও বার্তার মাঝখানে একটি প্ল্যাকার্ডে (We Shall overcome one day) লেখাটি পড়ে আমার সত্যিই ভাল লেগেছে। আপনারা যারা নিজেদের স্বউদ্যোগে  সোমেশ্বরী নদী ভাঙন রোধ করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছেন আপনাদের সবাইকে সাধুবাদ জানায়। মানুষের জীবনে যখন সমস্যা আসে এভাবেই যে সম্মিলিতভাবে সমাধানের জন্য উদ্যোগী হয়ে কাজ করা উচিত সেটিই আপনারা দেখিয়েছেন। প্রার্থনা রাখি আপনাদের প্রত্যাশানুযায়ী একদিন আপনারা উঠে দাঁড়াবেন। স্থানীয় প্রশাসনকে করমলে অনুরোধ করি সোমেশ্বরী নদী ভাঙন প্রতিরোধ করার জন্য আপনারা শীঘ্রই পদক্ষেপ গ্রহণ করুন।

গণপ্রজাতন্ত্রী বর্তমান বাংলাদেশ সরকারকে ধন্যবাদ জানায় শ্যামগঞ্জ থেকে বিরিশিরি-সুসংদুর্গাপুর পর্যন্ত সুন্দর রাস্তা মেরামত করে দেওয়ার জন্য। আগের চেয়ে আমরা এখন সত্যিই আরামে যাতায়াত করতে পারছি। যেখানে বিরিশিরি-সুসংদুর্গাপর থেকে ময়মনসিংহে যেতে তিন থেকে সাড়ে তিন ঘন্টা লাগতো এখন আমরা দের ঘণ্টার মধ্যেই পৌঁচ্ছতে পারছি।

তবে সমস্যা হলো সুন্দর রাস্তা হওয়ার ফলে এই রাস্তাটি এখন আরো ব্যস্ততম রাস্তায় পরিণত হচ্ছে। রাত দিন ২৪ ঘণ্টায় বালুভর্তি ট্রাক চলাচল করে বিধায় সাধারণ মানুষের বাসে যাতায়াতের চরম সমস্যা দেখা দিচ্ছে।

আজকাল রাস্তায় এত জ্যাম হয় বাসে বসে থাকতে থাকতে জনসাধারণের অবস্থা কাহিল হয়ে যায়। বাড়িতে যাওয়ার সময় সেই জ্যামে পড়লে বিশেষ করে সেতুর মাঝখানে জ্যামে আটকা পড়লে ভয়ে আতঙ্ক লাগে কবে যে ট্রাকভর্তি বালুর ভারে ব্রিজটা ভেঙে যায়। কারণ একটা ব্রিজের বহন করার ক্ষমতা যদি ১০০ টণের হয় সেখানে যদি এর দিগুণ মালামাল বহন করা হয় তাহলে স্বাভাবিকভাবেই ব্রিজটার ক্ষতি হবে। অপরিকল্পিতভাবে সোমেশ্বরী নদী থেকে বালু উত্তোলন করা ট্রাকভর্তি বালু সারা বাংলাদেশে নিয়ে যাওয়ার সময় ব্রিজে ঘণ্টার পর ঘন্টা জ্যামে এভাবে পড়ে থাকলে আর ক’দিনই-বা এই ব্রিজগুলো ঠিককে থাকবে সেটি চিন্তার বিষয়।

 

https://www.facebook.com/IndependentTVNews/videos/1211504035676807

আদিবাসী সাহিত্য নিয়ে বইমেলায় 'থকবিরিম'

একুশে বইমেলায় আদিবাসীদের সাহিত্য চর্চা নিয়ে হাজির হয়েছে #থকবিরিম প্রকাশনী। দেশসেরা প্রকাশনীগুলোর পাশাপাশি সমানতালে এগিয়ে এটি। এক নজরে দেখে নিন……….

Gepostet von independent24.tv am Freitag, 22. Februar 2019

ওয়াত্তা-চেংআ’ কোভিড-১৯ লকডাউনে অন্যভাবে উপার্জন ।। অনিমেষ তজু




সম্পাদক : মিঠুন রাকসাম

উপদেষ্টা : মতেন্দ্র মানখিন, থিওফিল নকরেক

যোগাযোগ:  ১৯ মণিপুরিপাড়া, সংসদ এভিনিউ ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫। 01787161281, 01575090829

thokbirim281@gmail.com

 

থকবিরিমে প্রকাশিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। Copyright 2020 © Thokbirim.com.

Design by Raytahost