Thokbirim | logo

৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বিরিশিরি বালিকা বিদ্যালয়ের ইতিহাস ।। পর্ব-৪ ।। মণীন্দ্রনাথ মারাক

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ০২, ২০২০, ১০:৩২

বিরিশিরি বালিকা বিদ্যালয়ের ইতিহাস ।। পর্ব-৪ ।। মণীন্দ্রনাথ মারাক

১৯২৪ সনে বালক বিদ্যালয়ে কিন্ডার গাটের্নে সেকশন খুলিলে বিদ্যালয়ের কিন্ডার গার্টেন সেকশনের ছেলেদের সেখানে পাঠাইয় দেওয়া হয়। মিস উইলিয়ামস ও মিস জি. হ্যারি (যিনি পরবর্তীতে মিসেস ডবলিউ, জি, ক্রফটস) যৌথভাবে বালিকা বোর্ডিং এর সিনিয়র ও জুনিয়র খ্রিষ্টীয় উদ্যোগ সমিতি পরিচালনা করেন। এই সময়ে স্কুলের ও বোর্ডিং এ অধিক সংখ্যক মেয়ে রাখার স্থানের অভাব ছিলো। তাই ১৯২৫ সনে প্রিন্সিপাল মিস জি. হ্যারি স্কুলগৃহ ও বোর্ডিং গৃহ সম্প্রসারণ করেন। ফলে বোর্ডিং এ মেয়ের সংখ্যা ৩৩ এবং স্কুলে ডে-স্কলারের সংখ্যা ১৬ তে উন্নিত হয়। শিক্ষিকা নলিনী বিশ্বাসকে উচ্চতর প্রশিক্ষণ গ্রহণের জন্য ময়মনসিংহে প্রেরণ করা হয়। দুইজন যুবতী গারো শিক্ষিকা বিবাহের জন্য পদত্যাগ করিয়া চলিয়া যান। তাহাদের স্থান ময়মনসিংহে নূতন প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত শিক্ষিকাদের দ্বারা পূরণ করা হয়। ১৯২৬ সনে স্কুলে সেলাই ডিপ্লোমা কোর্স চালু করা হয়। বেশ কয়েকজন মেয়ে সেলাই শিক্ষা গ্রহণ করে। বোর্ডিং এর জন্য একজন নূতন ম্যাট্রন নিযুক্ত করা হয়।

১৯২৭ সনে মহিলা মিশনারিদের গৃহ-নির্মাণ সমাপ্ত হয়। মিস উইলিয়ামস অবসর গ্রহণ করেন এবং মিস কাজিন স্কুলের  দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। এই বৎসর হাম রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটে। রেভা: পি. সি. নল বালিকা স্কুলের চারিপাশের জঙ্গল পরিস্কার করেন, ডোবা নালা ভরাট করেন, স্কুল প্রাঙ্গন সমতল করেন, দক্ষিণ ও পশ্চিম দিকে প্রাঙ্গন সম্প্রসারিত করিয়া বেড়া দেন। পূণ্য সপ্তাহের পূণ্য শুক্রবারে বোর্ডিং এর মেয়েরা কয়েকটি দলে বিভক্ত হইয়া নিকটবর্তী গ্রাম্য সানডে স্কুলগুলির ছেলেমেয়েদের নিকট যিশুর ক্রুশারোপণ, মৃত্যু, কবরস্থ ও পূনরুত্থান সম্বন্ধে প্রচারে অংশ গ্রহণ করে। নেতৃত্ব দেন- বিলাস, পরিমল, বোর্ডিং এর ম্যাট্রন, প্রধান শিক্ষিকা মৃন্ময়ী দাস, মিসেস নল, মিস স্টিভ প্রমুখ ব্যক্তিগন। তাঁহারা ছবির সাহায্যে ঐসব, বিষয়ে শিক্ষা দেন। এই বৎসরে বালিকাদের জন্য নূতন ডরমিটরিও নির্মিত হয়। এই বৎসরের শেষের দিকে নলিনী বিশ্বাস বালীগঞ্জের খ্রিষ্টীয়ান ট্রেনিং কলেজ হইতে প্রশিক্ষণ নিয়া চলিয়া আসেন এবং স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা নিযুক্ত হন।

১৯২৮ সনের প্রথম দিকে বসন্ত রোগের প্রদুর্ভাব দেখা দেয়। ফলে বাধ্য হইয়া বেশ কিছুদিন স্কুল বন্ধ রাখা হয়। এই বৎসর বোর্ডিং এ ছাত্রীর সংখ্যা ৩৯ জন। এই সনে তিন নেতা কানাই সাংমা, গোবিন্দ দারিং ও জয়নাথ কুবি পরলোকে গমন করেন। এই সনে বোর্ডিং এর বালিকা ও শিক্ষিকাদের নূতন রান্নাঘর, ও গুদাম ঘর নির্মিত হয়। মিস ফিন্ডলে স্কুলের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন এবং মিস কাজিন অন্যত্র চলিয়া যান।

১৯২৯ সনে আরও দুই জন প্রাক্তন ছাত্রীকে প্রশিক্ষণে প্রেরণ করা হয়। পানীয় জলের জন্য নতুন স্কুল কম্পাউন্ডে কংক্রিট রিং এর কূপ তৈরি হয়। এই সনে বোর্ডিং এ ছাত্রীসংখ্যা বৃদ্ধি পাইয়া ৪৩ জন হয়। এবৎসর ফেব্রুয়ারি মাসে রেভা: পি.সি. নল ও মিসেস নল বিদায় গ্রহণ করিয়া অস্ট্রেলিয়ায় গমন করেন। গারো ব্যাপ্টিস্ট ইউনিয়ন (বর্তমান গারো ব্যাপ্টিস্ট কনভেনশন) তাঁহাদের জন্য এক অভূতপূর্ব বিদায় সভার আয়োজন করে। বিভিন্ন গ্রাম্য ও মণ্ডলী হইতে ২,২০০ জন গারো খ্রিষ্টীয়ান এই বিদায় সভায় সমবেত হন।

বিদায় সভা পরিচালনা করেন ইউনিয়নের সভাপতি পাস্টর সুবেন মারাক। এই বিদায় সভায় স্কুলের মেয়েরা তাঁহাদের অনেক ফুলের মালা দিয়া তাঁহাদের সম্মান ভক্তি ও কৃতজ্ঞা জানায়। কারণ তাঁহারা স্বামী-স্ত্রী উভয়েই দীর্ঘদিন এই স্কুলের সেবা করেন। বিদায় সভার সমবেত সকল লোক তাহাদের বিদায় কালে বাসের আগে পিছে, মেয়েরা “ঘরে যাও, সঙ্গে লও, প্রিয় যিশুর হস্ত ঘরে” এবং পুরুষেরা-“যিশু বিনা কেহ নাই এ সংসারে”- গান গাহিতে গাহিতে পথ চলিয়া জারিয়া পর্যন্ত তাঁহাদের আগাইয়া দেন। আর তাঁহাদের নিয়া ট্রেন চলিয়া গেলে তাঁহারা বিরিশিরিতে ফিরিয়া আসেন।

চলবে…

লেখক পরিচিতি

গারো সম্প্রদায়ের জ্ঞানতাপস, পণ্ডিতজন রেভা. মণীন্দ্রনাথ মারাক জন্মগ্রহণ করেন ১৯৩৭ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি। বর্তমনে তিনি দুর্গাপুর থানা ধীন নিজ বাড়ি বিরিশিরির পশ্চিম উৎরাইল গ্রামে বসবাস করছেন।  দুই ছেলে  এক মেয়ে। স্ত্রী প্রতিভা দারিংও একজন শিক্ষক ছিলেন। বর্তমানে অবসরে আছেন। রেভা. মণীন্দ্রনাথ মারাকের অনেক লেখা বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। উনার ‘বিরিশিরি মিশিন এবং ব্যাপ্টিস্ট মণ্ডলীর ইতিহাস’ একটি গুরুত্বপূর্ণ বই।

গারো সম্প্রদায়ের পণ্ডিতজন ও লেখক রেভা মণীিন্দ্রনাথ মারাক

জ্ঞানতাপস মণীন্দ্রনাথ মারাক

 

আরো লেখা…

বিরিশিরি বালিকা বিদ্যালয়ের ইতিহাস ।। পর্ব-২ ।। মণীন্দ্রনাথ মারাক

বিরিশিরি বালিকা বিদ্যালয়ের ইতিহাস ।। পর্ব-৩ ।। মণীন্দ্রনাথ মরাক

বিরিশিরি বালিকা বিদ্যালয়ের ইতিহাস ।। পর্ব-১ ।। মণীন্দ্রনাথ মারাক

 




সম্পাদক : মিঠুন রাকসাম

উপদেষ্টা : মতেন্দ্র মানখিন, থিওফিল নকরেক

যোগাযোগ:  ১৯ মণিপুরিপাড়া, সংসদ এভিনিউ ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫। 01787161281, 01575090829

thokbirim281@gmail.com

 

থকবিরিমে প্রকাশিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। Copyright 2020 © Thokbirim.com.

Design by Raytahost