Thokbirim | logo

১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ফেইসবুকের মারফতে ৪৫/৫০ বছর পর দুই ভাইয়ের দেখা ।। জাডিল মৃ

প্রকাশিত : আগস্ট ১৩, ২০২০, ০০:৪১

ফেইসবুকের মারফতে ৪৫/৫০ বছর পর দুই ভাইয়ের দেখা ।। জাডিল মৃ

১.

মন খারাপের দিনগুলোতে কোন কিছু ভালো লাগে না।তবে অপ্রত্যাশিতভাবে যখন ভাগ্যক্রমে সু-সংবাদ শুনি তখন মন আনন্দে নেচে উঠে।সেই সময় মনে হয় পৃথিবীর সমস্ত সুখ আমার কাছে আছে।

তখন সুখ বিলাতে ইচ্ছে করে।যারা অসুখী তাঁদের জন্য সুখ বিলাতে ইচ্ছে করে, যেন পৃথিবীর সকল মানুষ সুখী হয়!অবশ্য যতটুকু পারি ততটুকুই সুখ বিলাতে চেষ্টা করি।অর্থাৎ সেইজন্য আজকে আপনাদের জন্য সুখের গল্প বলবো।ছোট গল্প তবে কাহিনি হচ্ছে পুরোটাই বাস্তবতার গল্প।

২.

ফেইসবুক দেখতে দেখতে হঠাৎ চোখ আটকে যায় ‘The Voice of Garo hills’ ফেইসবুক গ্রুপে।দু’টো বৃদ্ধ-বৃদ্ধার ছবি দেখি ; আবার পরে দেখি লেখা,” বাংলাদেশ এবং ভারত”।মনের আকর্ষণ থেকে পোস্টটি পড়লাম।তখন জানতে পারলাম যে তারা দু’ভাই। পোস্টদাতা কে, তা জানার জন্য প্রশান্ত চাম্বুগং ব্যক্তির ওয়ালে গিয়ে বিস্তারিত জানার চেষ্টা করলাম।

যতটুকু জানতে পেরেছি তা পর্যাপ্ত ছিল না।সেটার জন্য বরং ব্যক্তিগতভাবে যোগাযোগের চেষ্টা করে ব্যর্থ হলাম। তাই যতটুকু জানতে পেরেছি তাই জানানোর চেষ্টা করবো।আমি জানি না আমার মতো কতটুকু আপনারা সু্খ পাবেন।আমি ব্যক্তিগত ভাবে খবরটা দেখে খুবই সুখ অনুভব করেছি/করেছিলাম।

(প্রশান্ত চাম্বুগং ফেইসবুক ওয়াল থেকে তথ্য নিয়েছি)

৩.

প্রশান্ত চাম্বুগং তিনি অসুস্থতার জন্য ১৫/২০ দিন গ্রামে ছিলেন।গ্রামে থাকার সুবাধে উনার নানা শশুড়ের সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে এবং সুখ- দুঃখবোধ,অতীতের স্মৃতিচারণ সর্বোপরি নিজেদের ভালো মন্দ নিয়ে কথাবার্তা বলেছিলেন।তিনি গ্রামে থাকার সুযোগ পেলেই উনার নানা শশুড়ের সাথে গল্পে মেতে উঠেন।যেহেতু দীর্ঘসময় ধরে বাড়িতে থেকেছেন সেহেতু গল্পের ছলে সুখ-দুঃখবোধের গভীরে যেতে পেরেছেন বিধায় উনার কাছে নানা শশুড় নিজের ইচ্ছের কথা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন আমার আপনজন বলতে মাসি, খালা কিংবা বোনভাই এই দেশে আর নেই।সবাই চলেগেছে ভারতে।আমার এক ভাই ছিল সেও ভারতে আছে।যার সাথে ৪৫/৫০ বছর কথাবার্তা দেখা-সাক্ষাৎ নেই। সে বেঁচে আছে নাকি মরেগেছে জানা নেই।আমার বয়স হয়েছে কোন সময় কী হয়ে যায় জানা নেই।তাঁর দুঃখবোধ বুঝতে পেরে প্রশান্ত চাম্বুগং ‘The Voice of Garo hills’ ভারতে বসবাসরত গারোদের ফেইসবুক গ্রুপে পোস্ট করেন।পোস্ট করার পরে সেখাকার স্থানীয় অধিবাসী গারো’রা নানা ভাবে
কটাক্ষ মন্তব্য করেছিল।

কেন না সেখানকার প্রচলিত ভাষা এবং বাংলাদেশ প্রচলিত ভাষার মধ্যে পার্থক্য আছে।এবং যেহেতু গারো ভাষায় লেখা হয় কম তাই বানান বাক্য ঠিকঠাক মতো হয়নি কিংবা তাঁরা বুঝতে সক্ষম হয়নি বিধায় অপ্রত্যাশিত আচরণ দেখতে হয়েছে।আবার অনেকেই প্রশান্ত চাম্বগং এর পক্ষ নিয়েছে তাঁরা হয়তো সমস্যা বুঝতে পেরেছিল।

দু’দিন বাদে অপ্রত্যাশিত ভাবে ফেইসবুকে বড় ছেলের মোবাইল নাম্বর জুটে যায়।তিনি ভারতে নাম্বরে ফোন দিলেন এবং ৪ মিনিট ৩৭ সেকেন্ড কথা বললেন।যখন মোবাইল চেক করেন তখন দেখেন ৭২ টাকা শেষ।এইভাবে কথা বলে কুলাতে পারবে না দেখে তিনি What’s app যোগাযোগ করেন এবং তিনি কাঙ্ক্ষিত ছোট নানা শশুরকে পেয়ে গেলেন।

খুশির খবর; তিনি ভিডিও ফোনের মাধ্যমে দু’জন কে মুখোমুখি করে কথা বলিয়ে দিলেন।এত বছর পর দু’জন দু’জনকে দেখে নির্বাক মনে তাকিয়ে ছিলেন।এত বছর পর দেখা ৪৫/৫০ বছর তো কম না।এত বছর পরে ছোটবেলার চেহারা মনে রাখা কিংবা এই বৃদ্ধ বয়সে স্মরণের চেষ্টা খুবই কষ্টের।তাঁরা নিজেদের মুখ দেখতে পারলেও কথা বুঝতে পারেনি।তবে তাঁদের সহধর্মিণীদেরর কথা হয়েছে। এবং নতুন করে আবার আত্নীয় কিংবা প্রিয় মানুষের সন্ধান পেয়েছে

৪.

এতক্ষণ যার কথা বলছিলাম তা সত্য ঘটনা বটে।এমন সত্য ঘটনা খুবই বিরল।যে ব্যক্তি এত বছর ধরে মনে আফসোস লেগেছিল। বড় ভাইটি ছোট ভাইয়ের জন্য এত বছর চিন্তায় দিন কাটতো,ছোটভাই কেমন আছে(?) বেঁচে আছে কিনা(?) নানা প্রশ্ন মাথায় ঘুরপাক খেতে, একটি বার দেখার স্বাদ ছিল।সে-ই বড় ভাইটির মনে অবশ্যই মনে আনন্দ থাকবে, সুখ থাকবে।
এমন সুখ সত্যিই সৌভাগ্যের ব্যাপার।

আপনাদের মনেও নিশ্চয় আনন্দ জেগেছে, সুখ জেগেছে!

ছবি ফেসবুক থেকে সংগৃহীত

লেখক পরিচিতি

জাডিল মৃ তরুণ লেখক ও ব্লগার।

গারো তরুণ লেখক

লেখক জাডিল মৃ

জাডিল মৃ’র আরো লেখা

সাংসারেক ‘চিজং নকমা’ উরফে রাগেন্দ্র নকরেক ।। জাডিল মৃ

অপ্রত্যাশিত, শোকের বার্তা ।। জাডিল মৃ

কেমন আছেন শহিদ পীরেন স্নালের ছেলে-মেয়ে? ।। জাডিল মৃ

গ্রামে মাত্র পাঁচটি গারো পরিবার।। জাডিল মৃ

পীরেনের খিম্মায় ১৬ বছর যাবৎ কুটুপ পরিয়ে আসছেন “লতিন সিমসাং”।। জাডিল মৃ




সম্পাদক : মিঠুন রাকসাম

উপদেষ্টা : মতেন্দ্র মানখিন, থিওফিল নকরেক

যোগাযোগ:  ১৯ মণিপুরিপাড়া, সংসদ এভিনিউ ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫। 01787161281, 01575090829

thokbirim281@gmail.com

 

থকবিরিমে প্রকাশিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। Copyright 2020 © Thokbirim.com.

Design by Raytahost
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x