Thokbirim | logo

১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কোভিড-১৯: আদিবাসী দিবসে গ্রিকা করতে পারলেন না জনসন মৃ

প্রকাশিত : আগস্ট ১০, ২০২০, ১৭:১৭

কোভিড-১৯: আদিবাসী দিবসে গ্রিকা করতে পারলেন না জনসন মৃ

‘আমরা তো দল নিয়ে শহিদ মিনারে যাবার জন্য রেডিই ছিলাম। সঞ্জীব দ্রং বলল, আসা লাগবে না, এবার নেটেই অনুষ্ঠান হবে পরে আমরাও বাদ দিলাম। এবার করোনার কারণে আমাদের আদিবাসী দিবসের র‌্যালি কিংবা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা গেল না।’ বলছিলেন গারো সম্প্রদায়ের খামাল জনসন মৃ। তিনি আরো বলেন, এবারও আমার সব প্রস্তুতি ছিলো। কিন্তু করোনার কারণে গ্রিকা বা চাম্বিল মেশা হলো না।

জনসন মৃর বাড়ি মধুপুর থানার চুনিয়া গ্রামে। থাকেন কালাচাঁদপুর।  ওয়ানগালায় তিনি যেমন খামালের দায়িত্ব পালন করেন তেমনি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেও সেরেজিং, পান্থিদলং কিংবা গ্রিকা করেন। জনসন মৃ বলেন, আমি নিয়মিত ১৯৯৯ সাল থেকে রাজ পথে, বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গ্রিকা করে আসছি। গ্রিকা ছাড়াও আমি নিয়মিত চাম্বিল নৃত্য করতাম। অবশ্য ১৯৯৯ সালের আগে থেকেই আমরা গ্রামের বাড়ি থেকে বাসে করে দল নিয়ে আসতাম  অনুষ্ঠান করতে। তখন নটরডেম কলেজে থাকতে দিতো। মাঝে মাঝে শিল্পকলাতেও অনুষ্ঠান করতে আসতাম। কিন্তু নিয়মিত গ্রিকা কিংবা চাম্বিল নৃত্য করা শুরু করি ১৯৯ সাল থেকে।

আদিবাসী দিবসে জনসন মৃ

ঢাকা শহরে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গারো সম্প্রদায়ের একজন প্রতিনিধি মডেল হিসেবে হাতে মিল্লাম-স্ফি নিয়ে মুখে রঙ মেখে কিংবা চালের গুড়োর তক্কা মেখে দকশাড়ি পরে গ্রিকা করতেন জনসন মৃ। সাথে অনেকেই থাকতো কিন্তু লিড দিতেন জনসন মৃ।

জনসন মৃ বলেন, আমি আদিবাসীদের একটি এনজিও যেটা আলবার্ট মানখিন পরিচালনা করতেন সেখনে কাজ করার সময়ও প্রচুর অনুষ্ঠান করেছি। সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আমাকে যেতে হতো। অংশগ্রহণ করতে হতো। এটা নিয়ে আমি অবশ্যই গর্ববোধ করি। আমি আমার নিজস্ব জাতিকে-জাতির সংস্কৃতিকে অন্য জাতির কাছে তুলে ধরছি- এটাই আসল কথা।

জনসন মৃ বর্তমানে ঢাকা ওয়ানগালা কিংবা বাংলাদেশের যে কোনো ওয়ানগালায় খামালের দায়িত্ব পালন করতে ছুটে যান। নিজের খামাল সম্পর্কে তিনি বলেন,  তোমরা বললে বিশ্বাস করবানা, আমার নিজের অনেক অভিজ্ঞতা হয়েছে খামাল করতে এসে। একবার আমার স্ত্রীর পায়ে ব্যাথা। ডাক্তার দেখিয়েও লাভ হয়নি। পরে বাবাকে( খামাল জনিক নকরেক) বলার সাথে সাথে বাবা বলল, তুমি খামালগিরি করো এটা জানোনা না! পরে আামর মনে পড়লো তাই তো। আমি  আমাদের দেবতার কাছে আমুয়া করলাম। দেখলাম আমুয়ার পরই আমার স্ত্রী হেঁটে বাথরুমে গেল। এটা কী করে সম্ভব? এভাবে আরো অনেক ঘটনা আছে।

খামাল জনসন মৃ

খামাল জনসন মৃ

জনসন মৃর দুই ছেলে। একজনের বিয়ে হয়েছে। আরেকজন ইংরেজিতে অনার্স পড়ছে।স্ত্রীও কাজ করতেন তবে বর্তমানে বাসায় আছেন।

টিকা :

গ্রিকা :  গারো সম্প্রদায়ের একটি ঐতিহ্যবাহী যুদ্ধ নৃত্য।

চাম্বিল ;  এক ধরনের বুনো ফল, যে ফল গামছায় বেঁধে বলাকারেতৈরি করে কোমরে বেঁধে কোমর নাড়িয়ে, লাফিয়ে লাফিয়ে তালে তালে  নাচতে হয়।

দাম ;  গারো সম্প্রদায়ের বাদ্যযন্ত্র-এর নাম

আমুয়া : পূজা

ছবি সংগৃহীত

।। জাজ্রিং মারাক

গারো সংস্কৃতি সম্পর্কিত অন্যান্য লেখা

ওয়ানগালায় কীভাবে সাসাত সওয়া এলো ।। শেষ পর্ব।। মণীন্দ্রনাথ মারাক

নরেশ মৃ ।। সাংসারেক খামাল

টুইক্কা রেমা ।। সাংসারেক খামাল

দুই বোন ও রাক্ষস ।। গারো লোককাহিনি

 




সম্পাদক : মিঠুন রাকসাম

উপদেষ্টা : মতেন্দ্র মানখিন, থিওফিল নকরেক

যোগাযোগ:  ১৯ মণিপুরিপাড়া, সংসদ এভিনিউ ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫। 01787161281, 01575090829

thokbirim281@gmail.com

 

থকবিরিমে প্রকাশিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। Copyright 2020 © Thokbirim.com.

Design by Raytahost
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x